ফেইসবুক কি ডিলিট করা হবে?? সামাজিক যোগাযোগ ব্যবস্থা হতে

0
12

বন্ধুরা সকলে কেমন আছেন আশাকরি ভাল আছেন আমিও আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। আজকের পোস্টের বিষয় টা একটু বড়,তাই সময় নিয়ে পড়বেন।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক সকলেরই খুবই প্রিয় একটি প্লাটফরম যেখানে আমরা সকাল হতেই ফেইসবুক এবং রাতে ঘুমানোর আগে পযন্ত কিম্বা দিনে বলতে গেলে বহুবার বা বহু সময় ধরে এটি ব্যবহার করে থাকি,আবার এক কথায় বলতে গেলে ফেইসবুক ব্যবহার আমাদের নিত্যদিন কার অভ্যাস এর মতোই হয়ে উঠেছে।কিন্তু আমরা কয়জন ই বা জানি ফেইসবুকে তথ্যচুরি ঘটনা ঘটেছে।

ফেইসবুকে তথ্য চুরি (কেলেঙ্কারি) বা ফাস হওয়ার ঘটনাটি পর অভিযোগ উঠেছে ফেইসবুক বন্ধ করে দেওয়ার। এখন পযন্ত এ নিয়ে অনেকেই ফেইসবুক বন্ধ করার ব্যাপার এ কথ বলেছেন টুইটার সহ অন্যান্য মাধ্যোম গুলোতে।
সবচেয়ে ব্যপক সাড়া পেয়েছে টুইটারে‘!!ডিলিট ফেসবুক!!‘কর্মসূচি।
২০ মার্চ পর্যন্ত ডিলিট ফেসবুক (#DeleteFacebook) হ্যাশট্যাগটি ৫০ হাজারবারের ও বেশি টুইটারে ব্যবহৃত করতে দেখা গেছে। তবে এই ধারা আরও বলবান হয়ে ওঠবে যদি জনপ্রিয়তা পায়,কিন্তু তাতে কিবা আসে যায় ফেইসবুক প্রতিষ্ঠানটির।
??এখন দেখা গেছে ফেইসবুক ব্যবহার কারির সংখ্যা প্রায় ২২০ কোটির ও বেশি এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যোম ছেড়ে যাওয়ার সংখ্যা খুবই নগণ্য বলে (ধারনা)মনে করেছে ফেইসবুক সহপ্রতিষ্ঠাতা ও এর প্রধান র্নিবাহি পরিচালক মার্ক জাকারবার্গ।তবে চিন্তার বিষয় হচ্ছে সব তথ্য কী মুছে যাবে ফেইসবুক থেকে, নাকি বন্ধু বান্ধবের ও পরিচিতদের সুবাদে ফেইসবুকে তথ্য থেকেই যাবে।এ নি ভিন্ন মতা মত অনেকের। বেক্তিগত এ তথ্য নিয়েও তৈরি হচ্ছে শঙ্কা।
????এখন যানার বিষয় হচ্ছে কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা
কীভাবে তথ্য হাতাল??

র্নিবাচনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কিছু শর্ত সাপেক্ষ শিবিরের পক্ষে কাজ করার উদ্দেশ্যে কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহারকারী ও তাঁদের বন্ধুদের তথ্যভান্ডারে ঢোকার সুযোগ পেয়েছিল। ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে ভুল বুঝিয়ে গবেষণার নামে তারা এসব তথ্যের নাগাল পায়। তারা দাবি করেছিল, এসব তথ্য শুধু গবেষণার কাজে লাগানো হবে। এতে মানুষের নাম, অবস্থান, লিঙ্গ, তাদের পছন্দ-অপছন্দের তথ্য ছিল। ফেসবুক থেকে বেহাত হওয়া এসব ব্যবহার কারীর তথ্য কি খুব মূল্যবান ছিল???
??ফেইসবুকই অনুমোদন দিয়েছিল এটির।সাধারণ জনগনকে বাদ দিলেও বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে এসব তথ্যের অনেক মূল্য।
কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা কী?
(ভোটার তথ্য হালনাগাদ)যুক্তরাজ্যভিত্তিক তথ্যবিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান, যার মূল প্রতিষ্ঠান হচ্ছে স্ট্র্যাটেজিক কমিউনিকেশন ল্যাবরেটরিজ,প্রতিষ্ঠানটি রাজনৈতিক পরামর্শ দাতা হিসেবে কাজ করে। বিভিন্ন উৎস থেকে তথ্য নিয়ে ভোটারদের প্রোফাইল তৈরি করে। এরপর কম্পিউটার প্রোগ্রামের মাধ্যমে আচরণ বুঝে সে অনুযায়ী বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করে যা বলা যায় বেক্তি থেকে অনুমিত ছাড়ই তথ্য হাতানো।জাকারবার্গের প্রতিশ্রুতি↓↓

তথ্য বেহাতের ঘটনায় তদন্ত করা, যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া, ভবিষ্যতে সতর্ক থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মার্ক জাকারবার্গ। ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য সুরক্ষায় এখন থেকে কঠোর জাকারবার্গকে দেখা যাবে-এমন কথাও বলেছেন ফেসবুকের এই সহপ্রতিষ্ঠাতা।

ব্যবহারকারীদের করণীয়

ফেসবুকের সাম্প্রতিক ঘটনায় ব্যবহারকারীদের কিছু করার নেই। কারণ, ফেসবুক ও কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকার পক্ষ থেকে কিছু বলা হয়নি। প্রাইভেসি সেটিংস পরীক্ষা করে দেখতে পারেন তথ্য বেহাত হওয়ার মতো কোনো কিছু ঘটেছে কি না।
এখন ফেইবুক ডিলিট!! নিয়ে আলোচনা চালাচ্ছে যাতিসংগ্ঘ (ইউনেস্কো) তারা সর্বশেষ বলেছেন যেহেতু এটি বিশ্বের একটি জনপ্রিয় প্লাটফর্ম তায় ফেইসবুক ডিলিট করলে এর বহুসংখ্যক ব্যবহার কারিরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানাবে তায় এটি হুট করে বন্ধ না করে আরও আলোচনা করে সিদ্ধান্ত করার কথা জানিয়েছেন তারা।
তথ্যসূত্র :- প্রথমআলো,টুইটার,বিবিসি ও এনএফসি।
বিদ্রঃ- শেষের দিকে কিছু তথ্য প্রায় খুবই গুরুত্ব পূর্ণ তায় হুবহু তুলে ধরা হয়েছে(জাকারবার্গের প্রতিশ্রুতি, ব্যবহারকারীদের করণীয়)।

??কিছু ভুল করে থাকলে ক্ষমার দৃষ্টি তে দেখবেন আর ভুলটি জানাবেন।
পোস্ট টি পড়ে কেমন লাগলো আপনার মতামত যানাতে ভুলবেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here